বাংলা সাহিত্যের ইতিহাসে চর্যাপদের গুরুত্ব আলোচনা

বাংলা সাহিত্যের ইতিহাসে চর্যাপদের গুরুত্ব আলোচনা

চর্যাপদ কি?

চর্যাপদ হচ্ছে বাংলা ভাষার প্রাচীনতম পদ সংকলন তথা সাহিত্য নিদর্শন। এটি হল নব্য ভারতীয় আর্য ভাষারও প্রাচীনতর রচনা । এটি খ্রিষ্টীয় অষ্টম থেকে দ্বাদশ শতাব্দীর মধ্যবর্তী সময়ে রচিত এই গীতিপদাবলির রচয়িতারা ছিলেন সহজিয়া বৌদ্ধ সিদ্ধাচার্যগণ। বৌদ্ধ ধর্মের গূঢ় অর্থ সাংকেতিক রূপের আশ্রয়ে ব্যাখ্যার উদ্দেশ্যেই তাঁরা এই পদগুলো রচনা করেছিলেন।

চর্যাপদের ভাষা কি?

চর্যাপদের ভাষা মূলত প্রাচীন বাংলা ভাষা । এতে অপভ্রংশ তথা মৈথিলী, অসমিয়া ও উড়িয়া ভাষার প্রভাবও দেখেতে পাওয়া যায়। অনেকেই বলে যে এর ভাষাকে সান্ধ্যভাষা বলে অবিহিত করেন। চর্যাপদের প্রবাদ পুরুষ হরপ্রসাদ শাস্ত্রীর মতে . আলো আঁধারী ভাষা, কখনো বোঝা যায় আবার কখনো যায় না ।
তবে চর্যা পদের ভাষা যে প্রাচীন বাংলা ভাষা গবেষণ করে প্রমাণ করেছে প্রমাণ করেছেন- ড. সুনীতি কুমার চট্টোপ্যাধায়।
ভাষার অন্যতম বৈশিষ্ট্য হল-

১) ভাব কোথাও স্পষ্ট কোথায় অস্পষ্ট।

২) পদগুলো মাত্রাবৃত্ত ছন্দে রচিত।

বাংলা সাহিত্যের ইতিহাসে চর্যাপদের গুরুত্ব।

১) বাংলা ভাষার প্রাচীনরূপ সম্বন্ধে জানার প্রধান অবলম্বন হল চর্যাপদ।

২) বাংলা কবিতার মধ্যে যে অন্ত্যমিল দেখা যায়, সেই অন্ত্যমিলেরও উৎস বলা যায় ‘চর্যাপদ’ কে।

৩) বাংলা কবিতার ছন্দের ইতিহাস অনুসন্ধান করতে গেলে ‘চর্যাপদ’ এর আলোচনা অপরিসীম।

৪) বহু বাংলা শব্দের বিবর্তনের ধারা খুঁজে পেতে এই গ্রন্থের গুরুত্ব অপরিহার্য।

৫) ‘চর্যাপদ’-এ ব্যবহৃত প্রবাদ ও রূপকল্প পরবর্তী সময়ে বাংলা ভাষায় স্থান করে নিয়েছে।

চর্যাপদ নিয়ে গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন ও উত্তরঃ

১) বাংলা ভাষা ও সাহিত্যের প্রাচীন নিদর্শন কোনটি?
উত্তরঃ চর্যাপদ।

২) চর্যা শব্দের অর্থ কি?
উত্তরঃ আচরণ।

৩) চর্যাপদের প্রথম কবি কে?
উত্তরঃ লুইপা।

৪) চর্যাপদের অন্য নাম কি?
উত্তরঃ চর্যাগীতিকোষ বা দোহাকোষ।

৫) ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহ ও সুনীতিকুমার চট্টোপাধ্যায়ের মতে চর্যাপদের রচনাকালের সীমা কত ছিল?
উত্তরঃ ৬৫০ – ৯৫০ সাল।

৬) ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহর মতে চর্যাপদের ভাষা কি?
উত্তরঃ ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহর মতে চর্যাপদের ভাষা বঙ্গকামরূপী।

৭) চর্যাপদের প্রাপ্ত পুঁথিতে উল্লেখকৃত সংস্কৃত টীকাকার মুনিদত্তের মতানুসারে এর নাম কি?
উত্তরঃ আশ্চর্যচর্যাচয়।

৮) চর্যাপদ বাংলা ভাষার প্রথম রচনা এটা কে প্রমাণ করেন?
উত্তরঃ ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহ ও সুনীতিকুমার চট্টোপাধ্যায়।

৯) হরপ্রসাদ শাস্ত্রীর উপাধি কি?
উত্তরঃ মহামহোপাধ্যায়।

১০) চর্যাচর্যবিনিশ্চয়ে মোট কত জন পদকর্তার পরিচয় পাওয়া যায়?
উত্তরঃ ২৩ জন মতান্তরে ২৪ জন।

১১) চর্যাপদ কে কথায় কত সালে আবিষ্কার করেন ?
উত্তরঃ চর্যাপদ আবিষ্কার করেন মহামহোপাধ্যায় হরপ্রসাদ শাস্ত্রী নেপালের রাজদরবার থেকে ১৯০৭ সালে।

১২) চর্যা শব্দের অর্থ কি?
উত্তরঃ চর্যা শব্দের অর্থ আচরণ।

১৩) চর্যাপদের বিষয়বস্তু কি?
উত্তরঃ চর্যাপদের বিষয়বস্তু হচ্ছে বৌদ্ধধর্ম মতে সাধন ভোজনের তত্ত্ব প্রকাশ।

১৪) চর্যাপদের পান্ডুলিপি পাওয়া যায় কোন লাইব্রেরি থেকে?
উত্তরঃ নেপালের রয়েল লাইব্রেরী থেকে।

১৫) চর্যাপদের জন্ম হয়েছিল কোন প্রাকৃত থেকে?
উত্তরঃ গৌড়ীয় প্রাকৃত থেকে।

১৬) চর্যাপদে গানের সংখ্যা কয়টি?
উত্তরঃ চর্যাপদে গানের সংখ্যা ৫১ টি।

১৭) চর্যাপদে কয়টি পদের নষ্ট অংশ পাওয়া গেছে?
উত্তরঃ ৩ টি ( ২৪, ২৫, ৪৮ )।

১৮) চর্যাপদে প্রাপ্ত পুঁথিতে কয়টি পদ পাওয়া গেছে?
উত্তরঃ সাড়ে ৪৬ টি।

১৯) চর্যাপদগুলো কোন ভাষায় রচিত?
উত্তরঃ সন্ধা বা সান্ধ্য ভাষায় রচিত।

২০) চর্যাপদ কোন ছন্দে রচিত?
উত্তরঃ মাত্রাবৃত্ত ছন্দে।

২১) চর্যাপদ প্রথমে কী নামে প্রকাশিত হয়েছিল?
উ: চর্যাপদ প্রথমে প্রকাশিত হয় হাজার বছরের পুরান বাংলা ভাষার বৌদ্ধগান ও দোঁহা নামে।

২২) চর্যাপদ রচনা করেন কারা?
উত্তরঃ বৌদ্ধ সহজিয়ারা।

২৩) বাংলা ছাড়া আর কোন কোন ভাষার সাথে চর্যার মিল রয়েছে?
উত্তরঃ অপভ্রংশ, প্রাচীন হিন্দি, মৈথিলি, উরিষ্যা বা আসামী ভাষার সাথে।

২৪) চর্যাপদ আবিষ্কারের কত বছর পর তা গ্রন্থাগারে প্রকাশিত হয়?
উত্তরঃ ৯ বছর পর।

২৫) বাঙালি চর্যাপদের পদ কর্তা কারা?
উত্তরঃ লুইপা, কুক্কুরীপা, বিরুপা, ডোম্বী, শবর ধাম ছিলেন বাঙালি।

২৬) শবর পা কোন কবির গুরু?
উ: লুইপার গুরু।

২৭) কাহ্নুপা এর গুরু কে?
উত্তরঃ জালন্ধপাদ।

২৮) চর্যাপদের তিব্বতি অনুবাদ কে কত সালে করেন?
উত্তরঃ প্রবোধ বাগচী ১৯৩৮ সালে।

২৯) চর্যাপদের মহিলা কবির নাম কি?
উত্তরঃ কুক্কুরী পা।

৩০) চর্যাপদের সর্বাধিক পদ রচিয়তার নাম কি?
উত্তরঃ কাহ্নুপা। ১৩ পদ রচনা করেছেন।

৩১) সবচেয়ে বেশি চর্যাপদ পাওয়া গেছে কোন কবির?
উত্তরঃ কাহ্নপা

৩২) চর্যাপদ এক প্রকার কি?
উত্তরঃ গান ও কবিতা।

৩৩) ড. সুনীতিকুমার কোন বইতে পুথিঁলির ভাষাতাত্ত্বিক বৈশিষ্ট্য তুলে ধরেছেন?
উত্তরঃ The origin and Development of The Bengali Language (ODBL).

৩৪) চর্যাপদের ভাষা কে আলো আধারি ভাষা বলেছেন কে?
উত্তরঃ হরপ্রসাদ শাস্ত্রী।

৩৫) সর্বপ্রথম চর্যাপদের ভাষা নিয়ে আলোচনা করেন কে?
উত্তরঃ বিজয়চন্দ্র মজুমদার (১৯২০)।

৩৬) চর্যাপদের ১ম পদের ২ লাইন লিখুন ।
উত্তরঃ কাআ তরুবর পাঞ্চ বি ডাল / চঞ্চল চীএ পৈঠা কাল ।

 

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!